আইটি শিক্ষা মেনু

এসইও টার্মস যা অনলাইন মার্কেটারদের জানা উচিত

আপনি কি সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন সম্পর্কে জানতে চান ? যে কোন বিষয় জানার আগের তার মুল বিষয় এবং সেই বিষয়ে ব্যবহৃত শব্দ বা টার্মস জানা আবশ্যক । আইটি শিক্ষার সাথেই হয়ে উঠুন এসইও এক্সপার্ট। এসইও এর প্রাথমিক জ্ঞান এসইও টার্মস সম্পর্কে জানুন।

এসইও শেখার জন্য বিভিন্ন টার্ম আলোচনা করা হয়



৩০১ রিডিরেক্ট :রিডিরেক্ট শব্দটিই তার কাজ নির্দেশ করে। ওয়েবপেজ ব্যবহারকারীকে একটি ওয়েবপেইজ থেকে অন্য একটি ওয়েব পেইজে নিয়ে যাওয়া হয়। আপনি কোনএকটি ওয়েবপেইজের অ্যাড্রেস পরিবর্তন করলেন ৩০১ রিডিরেক্টের মাধ্যমে পুরাতান পেইজ থেকে ব্যবহারকারীকে নতুন পেইজে নিয়ে যেতে পারবেন । এই পদ্ধতিতে লিংক করা বা বুকমার্ক করার পুরাতন ওয়েবের ঠিকানাটি নতুন অ্যাড্রেস এ স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্যবহারকারীরা পৌছাতে পারবেন ।

Alt টেক্সট/ট্যাগ অথবা অ্যাট্রিবিউট :এইচটিএমএল এর মাধ্যমে কোন ছবির বর্ণনা দেওয়া। মানুষ ছবি দেখে চিনলেও সার্চ ইঞ্জিন শুধূ Alt টেক্সট পরে। এইচটিএমএল এ কোন ছবির বর্ণনা Alt ট্যাগের মাধ্যমে লিখলে সার্চ ইঞ্জিন তা খুব সহজে খুজে পায়।

অ্যাংকর টেক্সট: যেই শব্দ বা শব্দগুচ্ছের সাথে ওয়েবপেইজের লিংক করা হয়। অধিকাংশ ওয়েবসাইটে গাঢ় নীল রঙ এবং আন্ডারলাইন করা থাকে । অ্যাংকর টেক্সট সার্চ ইঞ্জিনকে লিংক করা পেজটি কি সম্পর্কিত তা নির্দেশ করে।

ব্লগ: এটি ওয়েবসাইটের অংশ যেখানে নিয়মিত বিভিন্ন প্রবন্ধ/লেখা প্রকাশিত হয়। প্রতিটি ব্লগ পোষ্টকে সার্চ ইঞ্জিন নতুন পেজ হিসাবে বিবেচনা করে এবং অনলাইনে তা খুজে পেতে সহায়তা করে । চেষ্টা করুন আপনার ব্লগটি যেন আপনার ডোমেইনের অংশ হয়।

বুর্কমার্ক : কোন ওয়েবসাইটের লিংক ভবিষ্যত ব্যবহারের জন্য ওয়েব ব্রাউজার বা কম্পিউটারে সংরক্ষন করা। সোশ্যাল বুকমার্কিং সাইট ব্যবহারকারীদের নিজেদের পছন্দের সাইটগুলো আদান প্রদান করতে সহায়তা করে। সোশ্যাল বুকমার্কিং সাইটে আপনার সাইটের লিংক যুক্ত থাকলে সার্চ ইঞ্জিন আপনার ওয়েবসাইটটি ব্যবহারকারীদের কাছে প্রয়োজনীয় ওয়েবসাইট মনে কর্

ক্যানোনিক্যাল ইউআরএল : অনেকসময় একই আর্টিকেল বা প্রবন্ধে ২ টা ঠিকানায় প্রবেশ করা যায়। সার্চ ইঞ্জিনকে ক্যানোলিকাল ইউআরএল মাধ্যমে ২ টি ইউআরএল একই নির্দেশ করা হয়।

কনভার্সন ফর্ম : যে ফর্মের মাধ্যমে সাইটের ভিজিটরদের তথ্য সংগ্রহ করা হয়্।
সিএসএস (ক্যাসক্যাডিং স্টাইলশীট): ওয়েব কোডিং এর একটি অংশ যার মাধ্যমে সাইটের বিভিন্ন উপাদানের (যেমন হেডার, ফুটার, বডি, লিংক) ইত্যাদির দেখতে কেমন হবে নির্দেশ করে।

ডিরেক্টরি : ফোন ডিরেক্টরির মত এটি ওয়েবসাইট ডিরেক্টরি। আপনার ওয়েবসাইটটি ডিরেক্টরিতে সাবমিট করার মাধ্যমে আপনার সাইটকে ব্যবহারকারীরা খুব সহজে খুজে পাবে। জনপ্রিয় ওয়েব ডিরেক্টরির মধ্যে ইয়াহু ডিরেক্টরি এবং ডিমোজ (Dmoz) ডিরেক্টরি অন্যতম।

ডোমেইন : ওয়েবসাইটের ঠিকানা হচ্ছে ডোমেইন । (যেমন www.itshikkha.com)। আপনার সাইটের ডোমেইনের নামটি নিজের নামে কয়েকবছরের জন্য রেজিষ্ট্রেশন করে রাখা উচিত । সার্চ ইঞ্জিন দীর্ঘমেয়াদি রেজিষ্ট্রেশনযুক্ত ওয়েবসাইটকে পছন্দ করে থাকে ।

দি ফোল্ড : ফো্ল্ড এর আভিধানিক অর্থ খাজ হওয়া। অর্থ্যাৎ ব্যবহারকারীরর মনিটর বা স্ক্রিনে ওয়েবসাইটের স্ক্রল করা ব্যাতীত কত অংশ দেখা যায় এটি নির্দেশ করে। স্ক্রিনে স্ক্রোল করার আগে যতটুকু অংশ দেখা যায় তাকে সার্চ ইঞ্জিন গুরুত্বপ্রদান করে। অনেক বেশী বিজ্ঞাপন গুগলে ঋনাত্নক প্রভাব তৈরী করে।

হেডিং: ওয়েবসাইটের যেসকল লেখা হেডিং ট্যাগ (h1,h2…h6) এর মধ্যে ব্যবহৃত হয় ।এই লেখাগুলো সাধঅরণত ওয়েবসাইটের অন্যান্য ফন্টের তুলানায় বড় ও বোল্ড হযে থাকে।
এইচটিএমএল : সার্চ ইঞ্জিন ওয়েবসাইটের যেই কোডগুলো পড়ে থাকে। ওয়েবসাইটের এইচটিএমএল কোড সবসময়ই সুন্দর বা পরিষ্কার রাখা উচিত । অপ্রয়োজনীয় কোড বাদ দেওয়া এবং লে-আউট সম্পর্কিত কোডগুলো সিএসএস এ রাখা উচিত। সুন্দর ও পরিছন্ন কোড এসইও এর জন্য সহায়ক ।

ইনবাউন্ড লিংক: একটি ওয়েবসাইটের সাথে অন্য ওয়েবসাইটের লিংক। অন্য ওয়েবসাইটটি যদি উচ্চ পেজ র‌্যাংক যুক্ত হয় তবে তা আপনার এসইও বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনকে উন্নত করে ।

জাভাস্ক্রিপ্ট: ওয়েবসাইটের বিভিন্ন উপাদানকে নানারকমভাবে সজ্জিত করা ,ইফেক্ট তৈরী প্রভৃতি কাজে জাভা স্ক্রিপ্ট ব্যবহৃত হয়।

কিওয়ার্ড : ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন বিষয় খোজ করার জন্য যেসব শব্দ বা শব্দগুচ্ছের সাহায্যে সার্চ ইঞ্জিনে খোজ করে সেগুলোই হচ্ছে কি-ওয়ার্ড । প্রত্যেকটি ওয়েবসাইটের একটি নিদির্ষ্ট লক্ষ্য থাকে নিদির্ষ্ট কিছু কি-ওয়ার্ডের মাধ্যম ওয়েবসাইটে ভিজিটর প্রবেশ করানো।

লিংক বিল্ডিং : অন্য ওয়েবসাইটে নিজের ওয়েবসাইটের লিংক পাওয়ার জন্য সার্চ ইঞ্জিনে সাইটের র‌্যাংকিং উন্নত করার পদ্ধতি বা কাজই হচ্ছে লিংক বিল্ডিং।

লং টেইল কি-ওয়ার্ড : একাধিক শব্দের সম্বন্বয়ে গঠিত কি-ওয়ার্ড । ছোট ছোট ওয়েব কোম্পানি গুলো সাধারণত নিদিষ্র্ট কিছু লং টেইল কি-ওয়ার্ড ব্যবহার করে। এতে প্রতিযোগির সংখ্যা তুলানামুলকভাবে অনেক ক্ষেত্রে কম হয়ে থাকে ।

মেটা ডাটা : মেটা ডাটা সার্চ ইঞ্জিনকে ওয়েবসাইটটি কি সম্পর্কিত তা নির্দেশ করে।

মেটা ডিস্ক্রিপশন: ১৬০ বর্ণের বা তার চেয়ে কম বর্ণের বর্ণনা যা ওয়েবসাইটে কোন পেজ সম্পর্কে বর্ণনা । সার্চ ইঞ্জিনে তা পেজ টাইটেল এর নিচে প্রদর্শন করে।

মেটা কি-ওয়ার্ড : সার্চ ইঞ্জিনে প্রথম দিকে মেটা কিওয়ার্ড ব্যবহৃত হত । ওয়েবপেজটি কি সম্পর্কিত তা মেটা কি-ওয়ার্ডে বর্ণনা করা হত । বর্তমানে অধিকাংশ প্রধঅন সার্চ ইঞ্জিনে মেটা কি-ওয়ার্ডের ব্যবহার নেই বললেই চলে।

মোজর‌্যাংক : এসইওমোজ (SEOmoz) কর্তৃক সরবরাহকৃত পেজ র‌্যাংক। এই পেজ র‌্যাংক সাধারণত ইনবাউন্ড লিংক এর উপর নির্ভর করে । এর মান ০ থেকে ১০ পর্যন্ত হয়ে থাকে ।

নো-ফলো : কোন লিংক যখন একটি ওয়েবসাইট থেকে অন্য ওয়েবসাইটের এসইও এর কোন পরিবর্তন ঘটায় না তখন সেটি নো ফলো লিংক।

পেজ র‌্যাংক : ০ (শুন্য) থেকে ১০ পর্যন্ত পেজ র‌্যাংক যা গুগল কর্তৃক সরবরাহ করা হয়। এটি সম্পুর্ণ সাইটের এসইও সম্পর্কে নির্দেশ করে।

পান্ডা : সার্চ ইঞ্জিনে র‌্যাংকিং এর জন্য ব্যবহৃত অ্যাললগারিদম।এটি গুগল ব্যবহার করে থাকে কোন পেজের র‌্যাংকিং এর জন্য।

পিপিসি (পে পার ক্লিক): বিজ্ঞাপনের প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে কোন বিজ্ঞাপন দাতা যখন কোন ওয়েবসাইটের বিজ্ঞাপন প্রদান করবেন তখন প্রতি ক্লিকের জন্য কত টাকা প্রদান করবেন তা নির্দেশ করে। গুগল অ্যাডওয়ার্ড পিপিসি এর একটি উদাহরণ।

র‌্যাংকিং ফ্যাক্টর : সার্চ ইঞ্জিন কোন পেজ র‌্যাংকিং এর জন্য যে সকল বিষয়ের প্রতি গুরত্‌ব দেয় তাই র‌্যাংকিং ফ্যাক্টর। এখানে ইনবাউন্ড লিংক, পেজ কন্টেন্ট , টাইটেল ,মেটা ডিস্ক্রিপশন সহ বিভিন্ন বিষয় অন্তর্ভুক্ত । আরও দেখুন : গুগল র‌্যাংকিং ফ্যাক্টর
রেফারার স্ট্রিং: ব্যবহারকারী একটি ওয়েব পেইজ থেকে অন্য ওয়েব পেজে প্রবেশের সময় ব্রাউজার কর্তৃক সরবরাহকৃত তথ্য যার ওয়েব মাষ্টারটুল বুঝতে পারে কিভাবে ব্যবহারকারী ওয়েবসাইটটিতে প্রবেশ করেছে।

আরএসএস : আরএসএস এর সম্পুর্ণ অর্থ হচ্ছে রিয়েলি সিম্পল সিন্ডিকেশন। ওয়েবসাইটের নতুন কন্টেন্ট প্রকাশিত হলে সাবস্ক্রিপশনের মাধ্যমে নতুন কন্টেন্ট সম্পর্কে জানা । ওয়েবসাইটের আরএসএসফিড ভিজিটরদের নতুন উপাদান সম্পর্কে অবগত করে।

এসইআরপি (সার্চ ইঞ্জিন র‌্যাংকিং পেজ): কোন কি-ওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করার পর সার্চ ইঞ্জিন যে সকল ফলাফল প্রদর্শন করে তার র‌্যাংকিং।

সাইটম্যাপ: বিশেষ ফাইল ওয়েবমাষ্টার বা বিভিন্ন সফটওয়্যারের মাধ্যমে তৈরী করা হয়। সার্চ ইঞ্জিন ইনডেক্সড করার জন্য এই ফাইল সুবিধা জনক।

সোশ্যাল মিডিয়া : ফেসবুক , ইউটিউব, লিংকডেন বা গুগলপ্লাস ইত্যাদি জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া। আপনার সাইটটির লিংক সোশ্যাল মিডিয়ায় থাকা অত্যন্ত গুরত্বপুর্ণ।

স্পাইডার: একটি কম্পিউটার প্রোগ্রাম যা বিভিন্ন ওয়েবসাইট ব্রাউজ করবে এবং সেই সাইট সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করে।

ট্রাফিক : আপনার সাইটের ভিজিটরদের ট্রাফিক বলা হয়।
টাইটেল: কোন ওয়েবসাইটের কোন পেইজের টাইটেল যা এইচটিএমএলট্যাগের মাধ্যমে প্রদান করা হয়। সার্চ ইঞ্জিনের ফলাফলে এই টাইটেল প্রদর্শন করা হয় এবং ব্যবহারকারীর ওয়েব ব্রাউজারের উপরে টাইটেল দেখানো হয়।

ট্রাফিক র‌্যাংক: ইন্টারনেটের অন্যান্য সাইটের তুলানায় আপনার সাইটের ট্রাফিকের উপর নির্ভর করে র‌্যাংকিং।অ্যালেক্সা এর মাধ্যমে আপনি যেকোন ওয়েবসাইটের ট্রাফিক র‌্যাংক দেখতে পারবেন ।

ইউআরএল: ওয়েবসাইটের কোন পেজের ঠিকানা। যেমন http://www.itshikkha.com/category/freelancing হচ্ছে আইটি শিক্ষা ওয়েবসাইটের ফ্রি ল্যান্সিং বিষয়ক পোষ্টের ইউআরএল ।

আপনার যদি মনে হয় কোন এসইও টার্ম বাদ পড়েছে আমাদের জানান।

এই বিষয়ে আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন

মেহের নিগার
চলার পথে কখন প্রযুক্তির সাথে যুক্ত হয়েছি জানি না । আইটি শিক্ষায় আমাকে প্রযুক্তির পথে দিয়েছে উৎসাহ আর অনুপ্রেরনা। তাই আইটি শিক্ষার জন্য লিখি। ধন্যবাদ আইটি শিক্ষাকে ।

No comments

Leave a Reply

ইমেইলের মাধ্যমে আমাদের পোষ্ট সমুহ পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

ফেইসবুকে আমরা