আইটি শিক্ষা মেনু

অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভ করার প্রয়োজনীয় সকল নিদের্শনা

গুগল অ্যাডসেন্স ! অনলাইনে আয়ের বিশ্বস্ত, নির্ভরযোগ্য মাধ্যম। আপনার মতামত ও জ্ঞানকে ছড়িয়ে দেওয়ার মাধ্যমে আপনি অনলাইনে আয় করতে পারেন । বিজ্ঞাপনদাতা ও প্রচারকারী উভয়ের জন্য অ্যাডসেন্স বিশ্বস্ত । আপনি যদি অ্যাডসেন্স পেতে চান তবে শুধু আবেদন করলেই হবে না আপনাকে অবশ্যই গুগলের কাছে প্রফেশনাল এবং মানসম্পন্ন হতে হবে না হলে আপনার আবেদনের কোন গুরুত্ব তাদের কাছে নেই ।

পরিসংখ্যানে দেখা যায়, প্রতি ১০০ টি অ্যাকাউন্টের মধ্যে গুগল ৩ টি অ্যাকাউন্টে তাদের বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের অনুমতি প্রদান করে। আপনি যদি এর আগে অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করে থাকেন এবং তা যদি গুগল দ্বারা প্রত্যাখাত হয় তবে নিচের পদ্ধতি অনুসরণ করে সহজেই অ্যাডসেন্স পেয়ে যাবেন ।

এডসেন্স অ্যাপ্রুভ করুন মাত্র তিন দিনেই

যে সকল বিষয় অবশ্যই লাগবে
আপনি যদি ওয়ার্ড প্রেস ব্যবহার করে থাকেন তবে নুন্যতম ৪০ টি মৌলিক আর্টিকেল রাখুন যা অন্যকোন ওয়েবসাইট থেকে কপি করা হয় নি । আর্টিকেলের মান অবশ্যই উচ্চ হতে হবে এবং যেখানে ছবির প্রয়োজন সেখানে প্রয়োজনীয় ছবি ব্যবহার করুন । চেষ্টা করুন দুটি আর্টিকেল ২০০০ শব্দের অধিক রাখতে যা পাঠকের নিকট অনেক জনপ্রিয় এবং অবাক করা হবে । আপনি যদি এইচটিএমএল বা সিএমএস নির্ভর না হন তবে ওয়েবসাইটে ৫০ টি পেজ তৈরী করুন ।

আপনি যদি উপরের এই তথ্যগুলো মিস করেন তবে গুগল আপনার ওয়েবসাইটকে অ্যাডসেন্স প্রকাশের অনুমতি প্রদান করবে না । অধিকাংশ ক্ষেত্রে গুগল অ্যাডসেন্স অনুমোদন না পাওয়ার কারণ হচ্ছে অপর্যাপ্ত কন্টেন্ট বা কপি পেষ্ট কন্টেন্ট। তাই অ্যাডসেন্সে আবেদন করার পুর্বে অবশ্যই আপনার ওয়েবসাইটে কন্টেন্ট সমৃদ্ধ করুন । আপনার কন্টেন্ট যত ভাল হবে আপনার ওয়েবসাইটের অ্যাডসেন্স পাওয়ার সম্ভাবনা তত বেড়ে যাবে ।

নিষিদ্ধ বিষয়গুলো ওয়েবসাইট থেকে বাদ দিন
পরিসংখ্যানে দেখা যায় স্বাস্থ্য ইন্টারনেট মার্কেটিং, ব্যবসা,আইন, টেকনোলজি, উদ্যোক্তা, ভ্রমন, লাইফস্টাইল, সোশ্যাল মিডিয়া ইত্যাদি কন্টেন্ট যুক্ত সাইটে খুব দ্রুত এডসেন্স অ্যাপ্রুভ হয় । আপনার ওয়েবসাইটে যদি গুগলের নিষিদ্ধ কন্টেন্ট থাকে তবে গুগল তা অ্যাপ্রুভ করবে না ।

একটি গবেষনায় দেখা গেছে আপনার ওয়েবসাইট যদি বিভিন্ন ইভেন্ট বা ছোট নিচির কোন টপিক্স হয় তবে গুগল অনেক ক্ষেত্রে অ্যাডসেন্স অনুমোদন প্রদান করে না । অ্যাডসেন্স অনুমোদন পাওয়ার সবচেয়ে ভাল উপায় হচ্ছে নিদির্ষ্ট বিষয় নিয়ে ব্লগিং করা। যেমন www.mayweathervspacquiaomatchonline.com (Mayweather vs Pacquiao Match Online).এই ধরনের স্পামি ডোমেইন হয়ত কিছু ক্ষেত্রে উচ্চ র‌্যাংকে যেতে পারে তবে তা অ্যাডসেন্সের জন্য সুবিধাজনক নয়। অন্য একাউন্ট দিয়ে এডসেন্সের আবেদন করে এই ওয়েবসাইটে অ্যাডসেন্স দিয়ে সহজেই আয় বাড়িয়ে ফেলতে পারেন।

৩য় পক্ষের কোন বিজ্ঞাপন না রাখা
গুগল অ্যাডসেন্সে আবেদন করার পুর্বে দেখে নিন আপনার সাইটে অন্যকোন বিজ্ঞাপন আছে কিনা। গুগল এই বিষয়কে অনেক গুরুত্ব প্রদান করে । আপনার ওয়েবসাইটে যদি ইয়াহু, চিটিকা বা ইনফোলিংকের বিজ্ঞাপন থাকে তবে তা সরিয়ে ফেলুন। এছাড়া বিভিন্ন অ্যাফিলিয়েট লিংক যেমন অ্যামাজন, ক্লিক ব্যাংক ইত্যাদির বিজ্ঞাপন অ্যাডসেন্স অ্যাপ্রুভ হওয়ার আগে পর্যন্ত সরিয়ে রাখুন ।

ওযেবসাইটের ডিজাইন এবং ব্যবহারকারীদের অভিজ্ঞতা
গুগল চায় সবসময় কোন ওয়েবাসাইট ব্রাউজ করার সময় যেন ব্যবহারকারীরা স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে। ভাল নেভিগেশন সিস্টেম, পরিছন্ন ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্সে প্রথম আবেদনেই অনুমোদন হওয়ার সম্ভাবনা থাকে । গুগল বিশ্বাস করে আপনি যদি প্রফেশনাল কালার স্কিম ব্যবহার করেন তবে ব্যবহারকারীরা বারবার আপনার ওয়েবসাইটে ফিরে আসবে এবং বিজ্ঞাপনে ক্লিক করার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে । এই ক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রফেশনাল টেম্পলেট ব্যবহার করতে পারেন ।

গুগুল অ্যানালাইটিক্স কোড
আপনার ওয়েবসাইটে গুগল অ্যানালাইটিক্স কোড গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য বিশ্বস্ততার প্রতীক। অ্যানালাইটিক্স কোড যুক্ত করার ফলে আপনি ভিজিটরদের কার্যক্রম নিয়মিত পর্যবেক্ষণ করেন বলে গুগল মনে করে ।

গুগল ওয়েবমাষ্টার ও বিং ভেরিফিকেশন
অ্যানালাইটিক্সের মত আপনার ওয়েবসাইটকে গুগল ওয়েবমাষ্টার টুলসে ভেরিফাই করুন । গুগল ওয়েবমাষ্টার টুলসের মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইটের বিভিন্ন ত্রুটি সম্পর্কে জানতে পারবেন এবং নিয়মিত ঠিক করতে পারবেন ।
বিং ওয়েবমাষ্টার টুলসে আপনার ওয়েবসাইটকে যুক্ত করার ফলে ওয়েবসাইটের প্রতি যত্ন ও দায়িত্বশীলতা প্রকাশ পায় এবং সার্চ ফলাফলে আপনার সাইটকে পাওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পাবে ।

এক্সএমএল সাইট ম্যাপ
সাইটম্যাপ তৈরী করা খুব বেশী কষ্টকর বা সময়সাপেক্ষ ব্যাপার নয়। আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে থাকেন তবে গুগল এক্সএমএল সাইটম্যাপ প্লাগিন ব্যবহার করতে পারেন । এক্সএমএল সাইট ম্যাপ আপনার ওয়েবসাইটের বিশ্বস্ততাকে বাড়িয়ে দিবে ।

রোবট ডট টেক্সট ফাইল
কোন ওয়েবসাইটের রোবট টেক্সট ফাইল ব্যবহারের মাধ্যমে ওয়েবসাইটে অপ্রয়োজনীয় পেজ গুগল ইনডেক্সড করা থেকে বিরত থাকবে । আপনি যদি রোবট টেক্সট ফাইলের মাধ্যমে অপ্রয়োজনীয় পেজ ইনডেক্সড করা থেকে গুগলকে বিরত রাখেন তবে তা আপনার সাইটের এসইও এর মান অনেকাংশে বৃদ্ধি করবে ।

অ্যালেক্সা র‌্যাংক
গুগল অ্যাডসেন্সের সাথে অ্যালেক্সা র‌্যাংক নিয়ে অনেক বিতর্ক আছে। অনেকেই মনে করেন অ্যালেক্সা র‌্যাংক অ্যাডসেন্সের জন্য কোন গুরুত্ব বহন করে না । ব্যাক্তিগতভাবে আমি বিশ্বাস করি, ম্যানুয়ালি যদি আপনি কোন ওয়েবসাইট সম্পর্কে যাচাই করতে চান তবে অ্যালেক্সা র‌্যাংকিং অনেক গুরুত্বপুর্ণ। অ্যাডসেন্সে আবেদন করার পুর্বে দ্রুত অ্যপ্রুভ করার জন্য আপনার ওয়েবসাইটকে চেষ্টা করুন ৪ লক্ষের নিচে নিয়ে আসতে । এর উপরের র‌্যাংকিংকে গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা হয় না ।

গুরুত্বপুর্ণ পেজ যা অবশ্যই থাকতে হবে

গুগল সবসময় চায় অ্যাডসেন্সে আবেদন করার পুর্বে আপনার পরিচয় জানতে । তাই আপনার ওয়েবসাইটে নিচের পেজ গুলো অবশ্যই তৈরী করুন

  • Privacy Policy
  • Disclaimer Policy
  • Terms of Usage
  • Contact Us
  • About Us

About Us পেজ পরিষ্কারভাবে বর্ণনা করুন আপনার পরিচয় কি , আপনার ওয়েবসাইট কেন তৈরী করা হয়েছে, ব্যবহারকারীরা কিভাবে আপনার ওয়েবসাইট থেকে উপকৃত হতে পারে। এক্ষেত্রে অবশ্যই বানান, গ্রামার, বিরাম চিহ্ণ সঠিকভাবে ব্যবহার করুন ।

ডোমেইন এবং ইমেইল
অধিকাংশই অ্যাডসেন্সের জন্য ওয়ার্ডপ্রেস বা ব্লগ স্পটের ফ্রি ডোমেইন ব্যবহার করে । অ্যাডসেন্স টিম ফ্রি ডোমেইনের চেয়ে টপ লেভেল ডোমেইনকে অধিক গুরুত্ব প্রদান করে । কিভাবে ডোমেইনের নাম নির্বাচন করবেন তা জানুন ডোমেইন নির্বাচন
ডোমেইনের সাথে সাথে আপনার নামে ইমেইল আইডি তৈরী করুন যেমন abc@gmail.com এর চেয়ে abc@site.com অনেক সহজে দৃষ্টি আকর্ষন করে ।

ট্রাফিক
যদিও অধিকাংশ পোর্টাল , ফোরাম গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য নিদির্ষ্ট পরিমান পেজভিউ এর প্রয়োজন নেই মনে করে তবে ব্যাক্তিগতভাবে আমার মতামত ওয়েবসাইটের জন্য কমপক্ষে ৫০+ ভিজিটর এবং ওয়েবসাইটের বয়স ২ মাস হলে অ্যাডসেন্সের আবেদন করুন ।এতে আপনার আবেদন বাতিল করার সম্ভাবনা কমে যাবে ।

আশা করি অ্যাডসেন্স সম্পর্কে আপনাদের ধারনা দিতে পেরেছি। কোন কিছু বাদ গিয়ে থাকলে কমেন্টের মাধ্যমে জানান । শুভ কামনা রইল ,অনলাইনে আয় শুরু হোক অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে।

মেহের নিগার
চলার পথে কখন প্রযুক্তির সাথে যুক্ত হয়েছি জানি না । আইটি শিক্ষায় আমাকে প্রযুক্তির পথে দিয়েছে উৎসাহ আর অনুপ্রেরনা। তাই আইটি শিক্ষার জন্য লিখি। ধন্যবাদ আইটি শিক্ষাকে ।

One comment

  1. nabila says:

    thanks a lot

Leave a Reply

ইমেইলের মাধ্যমে আমাদের পোষ্ট সমুহ পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

ফেইসবুকে আমরা